আজীবিকা গ্রামীণ এক্সপ্রেস যোজনা এবং মেগা কেডিট ক্যাম্পের শুভ উদ্বোধন করেন উপমুখ্যমন্ত্রী
আজীবিকা গ্রামীণ এক্সপ্রেস যোজনা এবং মেগা কেডিট ক্যাম্পের শুভ উদ্বোধন করেন উপমুখ্যমন্ত্রী

পত্রদূত প্রতিনিধিঃ আগরতলাঃ ত্রিপুরা গ্রামীণ জীবিকা মিশনে আগে যে কাজ হতো তার সাথে বর্তমানে অনেক ব্যতিক্রম। দেশের প্রধানমন্ত্রী বলেছেন দেশে রাজনৈতিক স্বাধীনতা এসেছে। গ্রামগুলিতে স্বরাজ নিয়ে আসতে হবে। গ্রাম যদি সুন্দর হয়, আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হয় তাহলে স্বরাজ বাস্তবায়িত হবে। এর জন্য মহিলাদের আত্ননির্ভর হতে হবে। মহিলারা এগিয়ে গেলে সমাজ শিক্ষিত এবং শক্তিশালী হবে। শনিবার রবীন্দ্র শতবার্ষিকী ভবনে আজীবিকা গ্রামীণ এক্সপ্রেস যোজনা এবং মেগা কেডিট ক্যাম্পের শুভ উদ্বোধন করে এমনটাই অভিমত ব্যক্ত করেন উপমুখ্যমন্ত্রী যীষ্ণু দেববর্মা। তিনি বলেন, আত্মনির্ভর ভারত এবং আত্মনির্ভর ত্রিপুরা গড়তে মহিলাদের যে সশক্তিকরণ এস এইচ জি গ্রুপগুলি  আরো বেশি সক্রিয়ভাবে ঋণ প্রদান করতে হবে। এবং ওয়ান ব্লক ওয়ান প্রডাক্ট করার প্রচেষ্টা নিয়েছে সরকার বলে জানান তিনি। এস এইচ জি  দ্রব্যগুলি কিভাবে বাজারজাত করা যায় সেদিকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। নতুন কাজ করার চিন্তাভাবনার করছে সরকার বলে জানান তিনি। রাজ্যে বর্তমানে ৪৮ হাজার সেলফ-হেল্প গ্রুপ আছে। পূর্বে ২৪ হাজার ৯৮১ টি গ্রুপ ছিল। কিন্তু এর মধ্যে কিছু গ্রুপ পর্বে ব্যাংকের টাকা আত্মসাৎ করেছে। ব্যাংকগুলিকে দেউলিয়া করে দিয়েছে বলে জানান অনুষ্ঠানে উপস্থিত সাংসদ প্রতিমা ভৌমিক। তিনি আরো বলেন সেল্ফ হেল্প গ্রুপের মূল উদ্দেশ্য হলো যাতে গ্রামীণ এলাকা সূত্র এবং শক্তিশালী করা যায়। ২ লক্ষ ২৭ হাজার মহিলা এতে যুক্ত রয়েছে। শনিবার ৬ টি ব্যাংক সম্মিলিতভাবে ১৪ কোটি ২৩ লক্ষ টাকা ঋণ দিচ্ছে। সেল্ফ হেল্প গ্রুপগুলির মহিলারা সেই টাকা গ্রামে বন্টন করে  হবে বলে অভিমত ব্যক্ত করেন শ্রীমতি ভূমিক। রাজ্যের বাঁশ বেত শিল্পের মতো শিল্পজাত দ্রব্যের বহিঃ রাজ্যে চাহিদা রয়েছে। লোকাল ফর ভোকালের অঙ্গ হিসেবে সেল্ফ হেল্প গ্রুপ সুপ্রিয় করে রাজ্যকে আর্থিকভাবে শক্তিশালী এবং আত্মনির্ভর করতে চাইছে সরকার। রোজগার মানে চাকরি নয়। রোজগার মানে দেশের প্রতিটি পরিবারকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী করা। এতে নতুন ভারত গড়ে উঠবে বলে অভিমত ব্যক্ত করলেন প্রতিমা ভৌমিক। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন পশ্চিম ত্রিপুরা জেলা পরিষদের সভাধিপতি অন্তরা সরকার দেব।

আরো পড়ুন